সোমবার,

২২ জুলাই ২০২৪

|

শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

XFilesBd

শিরোনাম

হত্যাকান্ড, লুটপাট ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিচার হবে নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী সাবেক আইজিপি বেনজীরের সম্পদ ক্রোকের নির্দেশ আদালতের হবিগঞ্জের কার ও ট্রাকের সংঘর্ষে নারীসহ নিহত ৫ যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী প্রাণি ও মৎস্যসম্পদ উন্নয়নে বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বিএনপি নেতারা সন্ত্রাসীদের সুরক্ষা দেওয়ার অপচেষ্টা করছে : ওবায়দুল

গৃহকর্মীকে নির্যাতনের ঘটনায় ডেইলি স্টারের নির্বাহী সম্পাদকসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ০৮:৪০, ৭ আগস্ট ২০২৩

আপডেট: ১০:০১, ৭ আগস্ট ২০২৩

গৃহকর্মীকে নির্যাতনের ঘটনায় ডেইলি স্টারের নির্বাহী সম্পাদকসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানার শাহজাহান রোডের একটি বাসার ৮ তলা থেকে রহস্যজনকভাবে পড়ে গৃহকর্মী ফেরদৌসী আহতের ঘটনায় তিনজনের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানা মামলা দায়ের হয়েছে। আসামিরা হলেন- ডেইলি স্টারের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল হক(৫৬), তার স্ত্রী তানিয়া খন্দকার (৪৬) ও আসমা আক্তার শিল্পী (৫১)।

রবিবার(৬ আগষ্ট) বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মাহফুজুল হক ভূঞা। তিনি বলেন, শুক্রবারে রহস্যজনকভাবে আট তালা থেকে পড়ে গৃহকর্মীর ফেরদৌসী আহত হয়। এই ঘটনায় শিশুকে হেফাজতে রেখে ব্যক্তিগত কাজে নিয়োজিত করে নির্যাতন ও অবহেলায় সংগঠিত শিশুর শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্ষতির ঘটনায় মোহাম্মদপুর থানায় বাদী হয় শিশু আইনের ৭০ ধারায় একটি মামলা(মামলা নং-২৩) দায়ের হয়েছে। এই মামলায় ডেইলি স্টারের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল হক তার স্ত্রী এবং শিশুটিকে যিনি এনে দিয়েছিল তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। শিশুটি বর্তমানে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি আছে। শিশুটির মা জোসনা বেগম বাদী হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন।

উল্লেখ্য আহত ওই গৃহকর্মীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা ওই ভবনের ম্যানেজার আদিল বলেন, গতকাল বিকেলে আটতলা থেকে দুই তলায় একটি শেডে পড়ে ফেরদৌসী। আমরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। ভোরে তার যৌনাঙ্গে একটি অপারেশন হয়। কীভাবে মেয়েটি পড়ে গেল সে বিষয়টি আমরা বলতে পারছি না। যার বাসায় ভাড়া থাকেন সেটা তারা বলতে পারবেন।

আহত শিশুটির মা জোসনা বেগম বলেন, আমার মেয়ে কয়েকদিন আগে ঢাকায় একটি বাসায় কাজে আসে। আমার কাছে খালি একটি মোবাইল নম্বর আছে। কার বাসায় কাজ করছে সেটি আমি বলতে পারি না। আমি খবর পেয়ে ঢাকায় এসে শুনেছি আমার মেয়ে আট তলা থেকে পড়ে গিয়েছিল। তার একটি অস্ত্রোপচার হয়েছে। এর বেশি আমি কিছু জানি না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহফুজুল হক ভূঁইয়া বলেন, গতকাল বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে ৬টার মধ্যে ওই শিশুটি ৮তলার ড্রয়িং রুমের জানালা দিয়ে পড়ে যায়। পরে তারা নিজেরাই ওই শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনাটি তারা পুলিশকে অবহিত করেনি। পরে আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। সেখান থেকে জানতে পারি ওই শিশুটিকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এরপর এক অফিসারকে পাঠালে জানতে পারি আহত শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভোর রাতের দিকে ওই শিশুটির যৌনাঙ্গে একটি অস্ত্রোপচার হয়। আট তলা থেকে একটি শিশু পড়ে গেল কিন্তু তার শরীরে তেমন কোন আঘাতের চিহ্ন নেই! আবার যৌনাঙ্গে একটি অস্ত্রোপচার হলো, বিষয়টি আমাদের কাছে রহস্যজনক মনে হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ৪-৫ দিন আগে ওই মেয়েটি সৈয়দ আশফাকুল হক নামে এক ব্যক্তির বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতে আসে। তারা যেভাবে বিষয়টি আমাদের কাছে গোপন করছেন ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হয়েছে। মেয়েটির জ্ঞান ফিরলে পূর্ণাঙ্গ ঘটনা আমরা জানতে পারব।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ওই বাসার গৃহকর্তা সৈয়দ আশফাকুল হক প্রভাবশালী হওয়ায় বিষয়টি গোপন করার চেষ্টা করছেন। বর্তমানে শিশুটি জরুরি বিভাগের অবজারভেশন রুমে চিকিৎসাধীন আছে। মেয়েটির বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর থানায়। ওই গৃহকর্মীর অস্ত্রোপচার যেসব চিকিৎসক করেছেন তাদের মধ্যে ডা. মৌসুমি ও মৌমীর নাম জানা গেছে। অন্য আরও একজন চিকিৎসক ছিলেন তার নাম জানা যায়নি।